১৭ লাখ টাকায় মুশফিকের ব্যাট কিনলেন আফ্রিদি

বাংলাদেশে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। কমিউনিটি ট্রান্সমিশনের কারণে ভাইরাসের গতিরোধ করা অনেকটাই অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে আক্রান্তদের চিকিৎসা ও ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনের জন্য প্রয়োজন বড় অঙ্কের অর্থ সহায়তা।

সেই ভাবনা থেকেই নিজের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরির ব্যাট নিলামে তুলেছিলেন মুশফিকুর রহিম। জাতীয় দলের অধিনায়ক থাকাকালে ২০১৩ সালে দেশের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছিলেন মুশফিক। গল টেস্টের সেই ইনিংসে মুশফিক যে ব্যাট দিয়ে কিনেছিলেন, তা তোলা হয়েছিল নিলামে। সেই ব্যাট কিনে নিয়েছে পাকিস্তানি ক্রিকেটার শহীদ আফ্রিদির গড়া শহীদ আফ্রিদি ফাউন্ডেশন।

ভুয়া বিডিংয়ের কারণে কিছুটা ঝক্কি-ঝামেলা পোহাতে হলেও ব্যাটটির নিলাম সম্পন্ন হয়েছে। প্রায় ১৭ লাখ (১৬ লাখ ৮০ হাজার) টাকায় ব্যাটটি বিক্রি হয়েছে নিলামে, যার ভিত্তিমূল্য ধরা হয়েছিল ৬ লাখ টাকা। গত ১০ মে রাতে মুশফিকের ব্যাটের নিলাম শুরু হয়। ব্যাট বিক্রির পুরো অর্থই করোনাভাইরাস মোকাবেলায় কাজে খরচ করা হবে।

২০১৩ সালে গল টেস্টে ঐতিহাসিক এক কীর্তি করে বসেছিলেন মুশফিকুর রহিম। দেশের ইতিহাসের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছিলেন শক্তিশালী শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। এরপর তিনি হাঁকিয়েছেন আরও একটি ডাবল সেঞ্চুরি। কিন্তু গলের সেই ২০০ রানের ইনিংস স্বভাবতই বিশেষ কিছু হয়ে আছে। বিশেষ কিছু হয়ে আছে সেই ব্যাটটিও, যে ব্যাট দিয়ে ২০০ রানের ইনিংসটি সাজিয়েছিলেন মুশফিক। প্রিয় ও ঐতিহাসিক সেই ব্যাটটিই তিনি তোলেন নিলামে।

যদিও ভুয়া বিডিংয়ে নিলাম একপর্যায়ে স্থগিত করা হয়। নিলাম শুরুর পরপরই চড়া মূল্য হাঁকাচ্ছিলেন বেনামী ভুয়া বিডাররা। সংশোধিত তথ্য হালনাগাদের পর আবারো বেনামী ও নীল সিনেমার তারকাদের নামধারী বিডাররা দর হাঁকাতে থাকেন। এতে ব্যাটের মূল্য অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যায়। কর্তৃপক্ষ বাধ্য হয়ে ব্যাটের নিলাম স্থগিত করেন।

২৪ ঘণ্টা/এম আর

এই বিভাগের আরো খবর

Leave A Reply

Your email address will not be published.