চট্টগ্রামে করোনার নমুনা পরীক্ষার ফলাফল জানতে চালু হয়েছে ওয়েব সাইট ‘ওয়াইস্যাব’। যেখানে ঘরে বসেই জানা যাবে নমুনা পরীক্ষার ফলাফল। একই সাথে করোনা পজিটিভ বা নেগেটিভ ফলাফল প্রাপ্তি সাপেক্ষে পরবর্তী করণীয় সম্পর্কে একটি নির্দেশনা প্রদর্শিত হবে সাইটটিতে।

বিজ্ঞাপন

রবিবার (২১ জুন) বিকেল সাড়ে চারটার দিকে চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ে নতুন এ ওয়েব সাইটটি উদ্বোধন করেন সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বী।

সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি জানান, প্রতিদিন করোনার নমুনা পরীক্ষাগারগুলো ফলাফল এ ওয়েব সাইটে আপলোড করা হবে। এ লক্ষ্যে ১৫ সদস্যের একটি স্বেচ্ছাসেবী দল কাজ করবে। যেখানে প্রদত্ত মোবাইল নম্বর ব্যবহার করে এখন থেকে খুব সহজে ঘরে বসে নমুনার ফল জানতে পারবে যে কেউই।
জানা যায়, চিকিৎসক ভিত্তিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ইয়াং সোশ্যাল এক্টিভিজম বোর্ড-(ওয়াইস্যাব) এর কারিগরি ও স্বেচ্ছাসেবী সহায়তায় শুধুমাত্র চট্টগ্রাম ও নিকটবর্তী জেলাসমুহের কোভিড ১৯ রিপোর্ট পেতে ভোগান্তি কমানোর জন্য ওয়েবসাইট তৈরী করা হয়েছে।

ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ আসিফ খানের সার্বিক তত্বাবধানে এ কাজটি সম্পন্ন করা হয়েছে।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের জেলা স্বাস্থ্য তত্ত্বাবধায়ক সুজন বড়ূয়া জানান, প্রতিদিন নমুনা পরীক্ষার ফল জানতেই নিয়ন্ত্রণ কক্ষে যে পরিমাণ ফোন পাওয়া যায় এবং অনেকেই সরাসারি চলে আসেন। কিন্তু এখন তারা ঘরে বসেই তাদের ফলাফল জানতে পারবে।
যেভাবে পাওয়া যাবে ফলাফল :
নমুনা প্রদানকারী www.ysab.info/Coronactg লিংকে প্রবেশ করে নিজের মোবাইল নং (নমুনা প্রদানের সময় উল্লেখিত) প্রদানের মাধ্যমে কোভিড-১৯ টেস্ট ফলাফল দেখতে সক্ষম হবে। যদি মোবাইল নং এর ডিজিট ভুল হয়ে থাকে তাহলে দুশ্চিন্তিত হওয়ার কারণ নেই, নমুনা প্রদানকারীর নাম, বয়স এবং যে তারিখে নমুনা প্রদান করা হয়ছে তা দিয়ে খুব সহজে রির্পোট পেতে সক্ষম হবেন। যদি পরিবারের সকলে একই নং দিয়ে থাকেন তা দিয়েও রির্পোট পাওয়া যাবে। এ সেবা নিতে নমুনা প্রদানকারীকে কোন ধরনের সার্ভিস চার্জ প্রদান করতে হবে না।

প্রসঙ্গত: টিম ওয়াইস্যাব মেডিকেল শিক্ষার্থী ও তরুন চিকিৎসকদের সমন্বয়ে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন যেখানে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের এবং দরিদ্র জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্য সুরক্ষায় কাজ করে।

এছাড়াও মেডিকেল শিক্ষার্থী এবং তরুন চিকিৎসকদের বিভিন্ন একাডেমীক সেমিনার এবং বিভিন্ন প্রশিক্ষণ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। সেইসাথে স্বাস্থ্য বিষয়ক বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে।

২৪ ঘণ্টা/এম আর