চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার কাশিয়াইশ ইউনিয়নের ৮নং ভান্ডারগাঁও ওয়ার্ডে নানা বাড়িতে দুই মেয়েকে হত্যা করে পিতা নিজেও আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বিজ্ঞাপন

আজ বুধবার (১ জুলাই) ভোর রাতে উক্ত এলাকায় প্রভাত বড়ুয়ার বাড়ির পাশে এ মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে।

দুই মেয়েকে গলা টিপে হত্যার পর পিতা নিজেও বিষ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায় বলে প্রতিবেশীরা জানান।

নিহত দুই মেয়ে হল টুকু বড়ুয়া (১৫) ও ছোট বোন নিশু বড়ুয়া (১০) বছর। তারা দুজনের ৮ম ও ৫ম শ্রেণীর ছাত্রী ছিল। তাদের পিতার নাম মুকন্ধ বড়ুয়া।

পটিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বোরহান উদ্দিন এ ঘটনা নিশ্চিত করলেও বিস্তারিত জানাতে পারেন নি। তিনি জানান, দুটি খুনের ঘটনা শুনেছি। পুলিশ ঘটনাস্থলে যাচ্ছে বিস্তারিত পরে জানাতে পারবো।

স্থানীয় ৮ নং ওয়ার্ডের মেম্বার মো. ইউসূফ জানান, মুকন্ধ বড়ুয়া ঢাকায় চাকুরী করেন। ৫ বছর আগে তার স্ত্রী মারা যান। দুই মেয়ে নানার বাড়িতে থাকতো। করোনা পরিস্থিতির কারণে লকডাউন হওয়ায় ২ মাস আগে তিনি গ্রামে এসে শশুর বাড়ীতে থাকতেন। গতকাল রাতে বা ভোরে তিনি দুই মেয়েকে হত্যা করে নিজেও বিষ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। তবে কি কারণে মেয়েদের হত্যা করা হয়েছে এখনো জানা যায় নি।

তিনি বলেন, ভোরে খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে এসেছি। পুলিশকে খবর দিয়েছি। এখনো পুলিশ আসে নাই। দুই মেয়ের লাশ পড়ে আছে। মুকন্ধ বড়ুয়াও অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে আছেন। পুলিশ না আসায় কেউ লাশ উদ্ধার করেনি।

২৪ ঘণ্টা/এম আর