সীতাকুণ্ড প্রতিনিধি : সীতাকুণ্ডের স্থানীয় সাংসদ দিদারুল আলমের উদ্বোধনীয় মডেল মসজিদ ও ইসলামী সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের ফলক ভাংচুরের ঘটনায় উপজেলার মুরাদপুর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ও ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি একরামুল হক টিটুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বিজ্ঞাপন

এমপি দিদারের পক্ষে আলমগীর নামে এক যুবক বাদী হয়ে সীতাকুণ্ড মডেল থানায় গত ২৫ জুন মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় বৃহস্পতিবার রাত ২টায় পুলিশ টিটুকে বাড়ী থেকে গ্রেফতার করে।

এব্যাপারে সাংসদ দিদারুল আলম বলেন, ২৩ জুন মঙ্গলবার উপজেলার মুরাদপুর ইউনিয়নের ফকিরহাট এলাকায় সাদেক মস্তান (রাঃ) উচ্চ বিদ্যালয়ের বিপরীত পাশে দৃষ্টিনন্দন মডেল মসজিদ ও ইসলামী সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করি। কিন্তু উদ্বোধনের দু’দিন পর দুষ্কৃতিকারীরা সরকারের ভাবমুর্তি ক্ষুণ্ন করতে রাতের আঁধারে উদ্বোধন ফলক ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়। এ ঘটনায় আমার পক্ষের লোক বাদী হয়ে মামলা দায়ের করে। ভাংচুরে সম্পৃক্ততার অভিযোগে টিটু নামে
একজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

মুরাদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতা জাহেদ হোসেন বাবু বলেন, টিটু ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি ও ইউপি সদস্য। তাকে মসজিদের উদ্ধোধনের ফলক ভাংচুরের মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে বলে শুনেছি।

উপজেলা ছাত্রলীগের ১ম যুগ্ম আহবায়ক শিহাব উদ্দিন বলেন, আমরা একজনকে গ্রেফতার করাই প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানাই, পাশাপাশি জোর দাবী জানাই এই ঘটনার সাথে জড়িত বাকি আসামিদের গ্রেফতারসহ এই ন্যাক্কারজনক ঘটনায় নির্দেশ দাতাদের খুজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির। যাতে কেউ আর মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ও সীতাকুন্ডের মাননীয় সংসদ দিদারুল আলম এর সীতাকুণ্ডে চলমান উন্নয়ন কর্মকান্ড কে বাধাগ্রস্থ করতে না পারে।

সীতাকুণ্ড মডেল থানার এসআই মো: মামুন গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত বলেন, ফলক ভাংচুরের মামলার তদন্তে টিটু’র নামে আসে। তাই তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

২৪ ঘণ্টা/এম আর/দুলু