চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সিঃ সহ সভাপতি ও দক্ষিণ জেলার আহবায়ক আবু সুফিয়ান বলেছেন, বিএনপির রাজনীতির এক নির্ভিক সৈনিক ছিলেন শফিউল বারী বাবু। তিনি একজন দক্ষ, বলিষ্ঠ ও দায়িত্বশীল সংগঠক ছিলেন। দল ও দেশের চরম ক্রান্তিলগ্নে তিনি স্বেচ্ছাসেবক দলকে সুসংগঠিত করে দেশের গণতন্ত্র ও ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

তিনি ছিলেন একজন ত্যাগী, সৎ, সাহসী ও আদর্শবান নেতা। তার অমায়িক আচরণের কারনে দলের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের নিকট তিনি ছিলেন অত্যন্ত প্রিয়। বাবু’র অকাল মৃত্যুতে দলের যে অপুরণীয় ক্ষতি হয়েছে তা পুরণ হওয়ার নয়।

তিনি আজ বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) বাদে জোহর নাসিমন ভবনস্থ দলীয় কার্যালয় সংলগ্ন জামে মাসজিদে স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় সভাপতি শফিউল বারী বাবুর মৃত্যুতে চট্টগ্রাম মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের দোয়া মাহফিলে মুসল্লীদের উদ্দেশ্যে এ কথা বলেন।

মিলাদ ও দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন জামে মাসজিদের খতিব মাওলানা এহসানুল হক।

চট্টগ্রাম মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের পক্ষ থেকে আগামীকাল শুক্রবার (৩১ জুলাই) নগরীর প্রতিটি ওয়ার্ড়ের মসজিদে দোয়া মাহফিল আয়োজনের কর্মসূচি ঘোষনা করা হয়।

এসময় আবু সুফিয়ান বলেন, বাবু ছাত্রজীবন থেকে শহীদ জিয়ার আদর্শ ও দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার আপসহীন নেতৃত্বে অনুপ্রাণিত হয়ে দলের সাংগঠনিক তৎপরতায় নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছিলেন। এই জন্য নিবেদিতপ্রাণ এই নেতাকে সইতে হয়েছে সরকারি নানা শারীরিক ও মানসিক জুলুম-নির্যাতন। তাঁর এই সংগ্রামী ভূমিকার জন্য তিনি দলের নেতাকর্মী ও দেশবাসীর কাছে স্মরণীয় হয়ে থাকবেন।

এসময় চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি নাজিমুর রহমান বলেন, দলের সব ক্রান্তিকালে শফিউল বারী বাবু দায়িত্ব পালন করতেন অত্যন্ত নিষ্ঠার সঙ্গে। স্বৈরচারী সরকারের নির্যাতন নিপীড়ন সহ্য করেও গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার সংগ্রামে মরহুম বাবু থাকতেন সামনের কাতারে। ছাত্রজীবন থেকেই তিনি গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য সংগ্রাম করে গেছেন দৃঢ় প্রত্যয় নিয়ে। বাবুর রাজনৈতিক চিন্তা ছিল দেশ ও দশের পক্ষে। তাই দেশের যেকোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগকবলিত এলাকায় সহায়তা দানের জন্য অসহায় মানুষের পাশে ছুটে যেতেন।

চট্টগ্রাম মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি এইচ এম রাশেদ খান বলেন, সরকারী দলের নানা বাধার মুখেও শফিউল বারী বাবু দলকে সুসংগঠিত ও শক্তিশালী করতে অদম্য সাহসিকতার সঙ্গে কাজ করে গেছেন। তাঁর মতো একজন যোগ্য ও দক্ষ নেতা না ফেরার দেশে চলে যাওয়ায় বিএনপির সব নেতাকর্মী শোকে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছে। আমরা তাঁর আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি।

চট্টগ্রাম মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক বেলায়েত হোসেন বুলু বলেন, দেশে করোনার আক্রমণ শুরু হওয়ার পর থেকেই নিজের জীবনকে বিপন্ন করে নিরন্ন কর্মহীন মানুষের পাশে বারবার ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে দাঁড়িয়েছেন শফিউল বারী বাবু। অকালে পৃথিবী থেকে তাঁর চলে যাওয়া দলের জন্য বড় ধরনের ক্ষতি। আল্লাহ তাঁকে জান্নাত নসিব করুন।

এই সময় উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সহ দপ্তর সম্পাদক মোঃ ইদ্রিস আলী, চট্টগ্রাম মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ সভাপতি আসাদুজ্জামান দিদার, সাংগঠনিক সম্পাদক জিয়াউর রহমান জিয়া, সিঃ যুগ্ম সম্পাদক আলী মর্তুজা খান, যুগ্ম সম্পাদক জমির উদ্দিন নাহিদ প্রমূখ।

২৪ ঘণ্টা/এম আর