চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের নব নিযুক্ত প্রশাসক আলহাজ্ব খোরশেদ আলম সুজন শনিবার সকালে ধানমন্ডীর ৩২ নম্বর সড়কে বাঙালির স্বাধীন জাতিসত্তা নির্মাণের স্মৃতিময় স্বাক্ষী ৩২ নং ধানমন্ডীর বঙ্গবন্ধু ভবনে যান। সেখানে স্থাপিত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেক মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানিয়ে দাঁড়িয়ে ১ মিনিট নীরবতা পালন করেন এবং বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্য এবং ১৫ আগস্ট ট্রাজেডিতে শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন।

বিজ্ঞাপন

এসময় উপস্থিত গণমাধ্যম কর্মীদেও উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম ও প্রধানতম বন্দর নগরীতে প্রশাসক হিসেবে নিযুক্ত করে প্রধানমন্ত্রী ও সভানেত্রী শেখ হাসিনা যে আস্থা রেখেছেন তার প্রতিদান দিতে আমি আমার সকল সামর্থ শতভাগ উজাড় করে দেব। রাজনীতির সহায়ক প্রতিপাদ্য পরিপূরক ব্রত হলো জনসেবা। এই ব্রত পালনে স্বচ্ছতা,সততা ও নিষ্ঠাই আমার চালিকা শক্তি এবং চট্টগ্রামকে একটি বাসযোগ্য নগরীতে পরিণত করতে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সেবা কার্যক্রমগুলোর পরিধি বাড়াবে।

তিনি আরো বলেন, স্থানীয় সরকার আইনানুযায়ী প্রশাসক হিসেবে বেঁধে দেওয়া ১৮০ দিনের প্রতিদিনই নগরীর সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে তাৎক্ষণিক সমাধানে চসিকের মোট জনবলকে মাঠ পর্যায়ে সক্রিয় রাখবো। সর্বোপরি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পেশাগত শৃংখলা, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে সামগ্রগ্রিক কর্মকান্ডের গতি বাড়িয়ে কাজের সুফল নগরবাসীর ঘরে ঘরে পৌঁছে দিতে সচেষ্ট হবো।

তিনি দৃঢ়তার সাথে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাইড লাইন আমার শক্তি ও প্রেরণা সূত্র। আমার পূর্বসূরী সাবেক মেয়রদের সকল ভালোকাজগুলোকে দৃষ্টান্ত হিসেবে ধারণ করে আরো ভালো কাজে উদ্যোগেী হতে সচেষ্ট থাকবো।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা মাহফুজুল হায়দার চৌধুরী রোটন, রাজনীতিক সালাউদ্দিন মাহমুদ চৌধুরী, কেন্দ্রীয় যুবলীগ সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক বদিউল আলম, চসিক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা, সচিব আবু শাহেদ চৌধুরী, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা মুফিদুল আলম, প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ এ.কে.এম রেজাউল করিম, একান্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল হাশেম, মেমন হাসপাতালের পরিচালক ডা. আশীষ মুখার্জী, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ) প্রকৌশলী ঝুলন কুমার দাশ, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী (যান্ত্রিক) প্রকৌশলী সুদীপ বসাক, অতিরিক্ত প্রধান হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা মো. হুমায়ুন কবির চৌধুরী, বস্তি ও বন কর্মকর্তা মইনুল হোসেন আলী চৌধুরী (জয়), নির্বাহী প্রকৌশলী (সিভিল) আবু সাদাত মো. তৈয়ব, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মশিউর রহমান চৌধুরী, আওয়ামী লীগ নেতা জামশেদুল আলম চৌধুরী, মহানগর যুবলীগ যুগ্ম-আহবায়ক মাহবুবুল হক সুমন, ফরহান আহমেদ, মাঈনুল হক লিমন, মহিউদ্দিন শাহ, তারেক হায়দার বাবু, আব্দুস সালাম মাসুম, নুরুল কবির, বদিউল আলম রাসেল, মোরশেদ আলম, এএসএম জাহিদ হোসেন, সমীর মহাজন লিটন, ফেরদৌস মাহমুদ আলমগীর, মোঃ সাইফুল্লাহ আনছারী, সরওয়ার্দী এলিন, চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগ সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু উপস্থিত ছিলেন।

ঢাকা রিপোটার্স ইউনিট মিলনায়তনে চট্টগ্রাম জার্নালিষ্ট ফোরামের সাথে খোরশেদ আলম সুজন : চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের নব নিযুক্ত প্রশাসক আলহাজ্ব খোরশেদ আলম সুজন বলেছেন, নগরবসীর ভোগান্তি লাঘবে যখন যা-কিছু প্রয়োজন আমি তা-ই করবো। আমি একজন রাজনীতিক হিসেবে প্রায় অর্ধ শতাব্দীকাল ধরে মানুষের সুখ-দুু:খের সাথী হিসেবে আছি। পথ-পদবী-ক্ষমতা থাকুক বা না থাকুক কোন সমস্যার কথা জানতে পেরেছি তখনই তা সমাধানে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আমলে আনতে আবেদন-নিবেদন ও প্রয়োজনে চাপ সৃষ্টি করেছি। নাগরিক সমাজের প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি সম্পর্কে আমি সম্যক ধারনা রাখি। তাই চসিকের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রশাসক হিসেবে নিজস্ব লোকবল ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে মধুর সম্পর্ক গড়ে তুলে তাদেরকে সাথে নিয়ে আমি রাস্তায় থাকবো, মানুষের পাশাপাশি থাকবো। আমি আগেও রাস্তায় ছিলাম এখনো আছি এবং মৃত্যু পর্যন্ত থাকবো। কেননা এই রাস্তাই শিক্ষা-দীক্ষা-চেতনা ও সকল অজনের অভিজ্ঞণের ভিত্তি সোপান।

তিনি আজ ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটির(ডিআরইউ) নসঢাকা রিপোটার্স ইউনিট মিলনায়তনে চট্টগ্রাম জার্নালিষ্ট ফোরামের সাথে এক মতবিনিময় সভায় একথাগুলো বলেছেন।

তিনি আরো বলেন, আমি চসিকের যাদেরকে নিয়ে মাঠে থাকবো তাদের তিল পরিমান বিচ্যুতি,অনিয়ম বা নয়-ছয় করার প্রবণতাকে বরাদস্ত করবো না। যারা যোগ্য,দক্ষ্য ও আন্তরিক তাদেরকে বুকে টেনে নেব। কারণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমার উপর যে আস্থা রেখেছেন আমি তাঁর প্রতিদান দিতে চাই। তাই গণমাধ্যমসহ সকলের সহযোগিতায় সরকার সিটি কর্পোরেশন সহ সকল সেবা সংস্থার ভাবমূর্তীকে উজ্জ্বল করতে প্রত্যয়ী। যেসমস্ত চট্টগ্রামের সন্তান ঢাকায় সাংবাদিকতা করছেন তাঁরা আমাদের দূত। তাদের ইতিবাচক সমালোচনা পরামর্শ আমি অবশ্যই আমলে নেব।

মতবিনিময় সময় উপস্থিত সাংবাদিকদের মধ্যে বক্তব্য রাখেনদৈনিক ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত, চট্টগ্রাম জার্নালিষ্ট ফোরামের সভাপতি সাহেদ ছিদ্দীকি, সাধারণ সম্পাদক মোরশেদ নোমান, সাবেক সভাপতি মোস্তফা কামাল, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কুদ্দুস আফরাত, দীপ্ত টেলিভিশনের হেড অব দ্য নিউজ ইব্রাহীম আজাদ প্রমূখ।

২৪ ঘণ্টা/এম আর