চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক আলহাজ্ব মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজন বলেছেন, নগরবসীর দূর্ভোগ লাঘবে আমি প্রতিদিন সাধারণ মানুষের অভাব-অভিযোগের কথাগুলো শুনে তার দ্রুত সমাধানের জন্য আমার প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবো। আমার দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি নগরবাসীর হৃদয়মনের কাছাকাছি পৌঁছে তাদের চাওয়া পাওয়া এবং অপূর্ণ আকাঙ্খাগুলো জানা এবং চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের কোন কোন ক্ষেত্রে অনিয়ম অস্বচ্ছতা গাফিলতি ও ব্যবস্থাপনাগত শৃংখলার অভাব রয়েছে সেগুলোকে চিহ্নিত করে সেবাখাতগুলোর সক্ষমতা বৃদ্ধি করা। স্বচ্ছতা ও নৈতিকতাকে অবশ্যই অন্তরে ধারণ করতে হবে ।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, চসিকের সাথে সাধারণ জনগণের সরাসরি সম্পর্ক গড়ে তোলার জন্যই এই গণ স্বাক্ষাতকারের ব্যবস্থা।

আজ সকালে আন্দরকিল্লাস্থ চসিক পুরাতন নগরভবনে গণস্বাক্ষাতকার গ্রহণ কার্যক্রমের ২য় দিনে তিনি এ কথাগুলো বলেছেন।

আজকের এই গণসাক্ষাতকারে ২৪ জন্য ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান প্রশাসকের সাথে সাক্ষাত করেন।

সাক্ষাতকালে যারা বিভিন্ন অভাব-অভিযোগ ও সমস্যার কথাগুলো জানিয়েছেন সেগুলো তিনি আমলে নিয়েছেন বলে মন্তব্য করে বলেন, আপনাদের অভাব অভিযোগুলো যাচাই-বাছাই এবং এর সত্যতা খতিয়ে দেখে অবশ্যই যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তিনি আরো বলেন, নগরবাসী অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের সমস্যা নিয়ে আসলেও তা সমাধানের চেষ্টা করবো।

এসময় চসিক সচিব আবু শাহেদ চৌধুরী, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা মো. মুফিদুল আলম, প্রশাসকের একান্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল হাশেম সহ সংশ্লিস্টরা উপস্থিত ছিলেন।

চসিক পরিচ্ছন্ন কর্মীদের পোষাক বিতরণ
শীত ও বর্ষার জন্য বিশেষ পোশাক দেয়া হবে-সুজন

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক আলহাজ্ব মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজন বলেছেন, প্রয়াত সাবেক মেয়র আলহাজ্ব এ.বি.এম মহিউদ্দিন চৌধুরী পরিচ্ছন্ন কর্মীদের সেবক উপাধী দিয়ে মর্যাদার আসীন করে গেছেন। এযাবতকাল সেবকদের জন্য এমন দরদী মানুষ আমি আর দেখি নি। সেবকদের পোশাক পরিচ্ছেদেও তিনি নতুনত্ব এনেছিলেন। তাঁর আদর্শের অনুসারী হিসেবে আমি গর্বিত।

আজ সকালে টাইগারপাসস্থ চসিক সম্মেলন কক্ষে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সেবকদের নতুন পোশাক বিতরণকালে প্রশাসক একথা বলেন।

তিনি বলেন, সেবকদের এই পোষাক অনেক মর্যাদার। এই পোষাক আপনাদের দায়িত্বজ্ঞাণ সম্পর্কে সচেতন করে তুলবে। ৬০ লক্ষ নগরবাসীদের সেবক আপনারা। এথেকে বড় গর্বের বিষয় হয়ত আর হয় না। প্রশাসক কর্তৃপক্ষের সন্তুষ্টি ও নগরবাসীর সেবক হিসেবে নিজেদের কর্মসম্পাদনের জন্য সেবকদের প্রতি আহবান জানান। প্রশাসক আগামীতে মৌসুম ভিত্তিক শীত ও বর্ষার জন্য আলাদা পোষাক দেয়ার ঘোষনা দেন।

তিনি বলেন পরিচ্ছন্ন সুপারভাইজারদের জন্যও আলাদা পোষাক বিতরণ করা হবে। তিনি বলেন, বৈশ্বিক করোনা মহামারিকালে আমাদের পরিচ্ছন্ন কর্মীরা যে সাহসী ভূমিকা পালন করেছে তার জন্য তাদের আমি ধন্যবাদ জানাই। সমাজের অনেক শ্রেনী-পেশার মানুষ যখন নিজেদের দায়িত্বকে পদদলিত করে ঘরে বসে দিন কাটিয়েছেন। তখন আমাদের পরিচ্ছন্ন সেবকরা কোন প্রকার সুরক্ষা ব্যবস্থা ছাড়াই বীর দর্পে কাজ করে শহর পরিচ্ছন্ন রেখেছেন। আমি আশা করি আগামীতেও আপনারা এরকম ভুমিকা রাখবেন।

এসময় চসিক প্রশাসকের একান্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল হাশেম, চসিক প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা সফিকুল মান্নান সিদ্দিকী উপস্থিত ছিলেন।

২৪ ঘণ্টা/এম আর