চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ও চসিক মেয়র প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন, আওয়ামী দুঃশাসন বিরোধী গণতন্ত্র পূণঃরুদ্ধার আন্দোলনের অংশ হিসেবে বিএনপি উপ-নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। কিন্তু বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিলেই যেন সরকার ও আওয়ামী লীগের মধ্যে অস্থিরতা শুরু হয়। কারণ তারা বিএনপি ও জনগনকে ভয় পায়।

বিজ্ঞাপন

জনগণের অংশগ্রহণে উৎসবমূখর পরিবেশে অবাধ, নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচনকেও ভয় পায়। তারা জানে গ্রহণযোগ্য ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে তাদের ভরাডুবি সুনিশ্চিত। সেজন্য নির্বাচনী প্রক্রিয়া শুরু হলেই তারা দলীয় ও রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস চালিয়ে বিএনপি প্রার্থী ও কর্মী সমর্থকদের ওপর হামলা, মামলা, হুমকি ও ভয়-ভীতি প্রদর্শণের মাধ্যমে নির্বাচনী পরিবেশকে ধ্বংস করে দেয়। জনগণের ভোটাধিকার হরণ করে নির্বাচনকে ব্যর্থ করে দিচ্ছে। দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকার দম্ভে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বেপরোয়া হয়ে ওঠেছে।

২৪ উত্তর আগ্রাবাদ ওয়ার্ড বিএনপির উদ্যোগে আজ বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) বিকালে আবদুল হাকিম মিঞ্চা বাড়ির সামনে করোনা সুরক্ষা সামগ্রী ও মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, আওয়ামী লীগের ক্ষমতার দাপটে দেশে কোনও শ্রেণী-পেশার মানুষের জীবনের নিরাপত্তা ও মানবাধিকার নেই। ঢাকার অবৈধ এমপি হাজী সেলিমের ছেলে কর্তৃক নৌবাহিনী কর্মকর্তাকে মেরে দাঁত ফেলে দেওয়া এবং কক্সবাজারের ওসি প্রদীপ কর্তৃক মেজর সিনহা হত্যার মতো ঘটনা এখন নিত্যদিনের ঘটনায় পরিণত হয়েছে। হাজী সেলিমের ছেলের টর্চার সেল থেকে উন্নত প্রযুক্তির যে সমস্ত সরঞ্চাম উদ্ধার হয়েছে, সবকিছুই সন্ত্রাসী কার্য্যে ব্যবহৃত হতো। বুঝা যায় সরকারের মদদে আওয়ামী ক্যাডাররা পুরো দেশে সন্ত্রাসী কার্যকলাপে উদ্ধারকৃত এসব সরঞ্চাম ব্যবহৃত হয়। আওয়ামী লীগের নেতাদের অপকর্ম একের পর এক বেরিয়ে আসছে। আওয়ামীলীগের এসব অপকর্মের বিরুদ্ধে জনগনকে সোচ্চার হতে হবে।

প্রধান বক্তার বক্তব্যে মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাসেম বক্কর বলেন, র্আওয়ামী লীগ প্রতিটি নির্বাচনেই তাদের সন্ত্রাসী বাহিনীকে ব্যবহার করে বিএনপি প্রার্থী ও নেতাকর্মীদের উপর হামলা, মামলা চালিয়ে আসছে। নির্বাচনী প্রচারণায় প্রতিটি ক্ষেত্রে তারা বাধার সৃষ্টি করে আসছে। বিভিন্নভাবে বিএনপির প্রার্থীদের উপর হামলা-মামলার মাধ্যমে ভোটের পরিবেশ নষ্ট করছে। তারা চায় এমন পরিস্থিতি সৃষ্টির মাধ্যমে বিএনপির প্রার্থী ও ভোটাররা যেন নির্বাচন থেকে সরে যায়। তারা জানে না, জনগন তাদের বর্জন করেছে। নির্বাচন কমিশনকে ব্যবহার করে নির্বাচনী বৈতরণী পার হওয়া গেলেও জনগনের সাথে তাদের কোনো সম্পর্কই নেই।

২৪ নম্বর উত্তর আগ্রাবাদ ওয়ার্ড বিএনপির আহবায়ক কাউন্সিলর প্রার্থী এসএম ফরিদুল আলমের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি নাজিমুর রহমান, নিয়াজ মোহাম্মদ খান, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক এসএম সাইফুল আলম, যুগ্ম সম্পাদক কাজী বেলাল উদ্দিন, আব্দুল হালিম শাহ আলম, ইয়াসিন চৌধুরী লিটন, সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল ইসলাম, সহ-সাধারন সম্পাদক মাহবুবুল হক, মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক এড. আহমদ কামরুল ইসলাম সাজ্জাদ, ডবলমুরিং থানা বিএনপির সভাপতি মো. সেকান্দর, নগর বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মো. ইকবাল হোসেন। বক্তব্য রাখেন, নগর বিএনপির সহ দপ্তর সম্পাদক মো. ইদ্রিস আলী, সহ-পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক সাবের আহমেদ, সদস্য বুলবুল আহমদ, নগর যুবদলের সহ-সভাপতি মিয়া মো. হারুন, নগর তাঁতী দলের আহ্বায়ক মনিরুজ্জামান টিটু, নগর যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক মোহাম্মদ সেলিম, মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী খালেদা বোরহান, আবদুল হাকিম, বজল আহমদসহ বিএনপি, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও ছাত্রদলের নেতৃবৃন্দ।

২৪ ঘণ্টা/রিহাম