খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি : খাগড়াছড়ি জেলা ছাত্রলীগের মেয়াদ উত্তীর্ণ কমিটির সভাপতি টেকো চাকমা এবং সা:সম্পাদক জহির উদ্দিন ফিরোজের বিরুদ্ধে জায়গা দখল, মাদক ব্যবসা, বিএনপি-জামাতসহ আঞ্চলিক দলের সাথে সখ্যতাসহ নানামুখী অভিযোগ তুলেছেন তাঁদের কমিটির বিভিন্ন পদের দায়িত্বশীল নেতারা।

বিজ্ঞাপন

একই সাথে টাকার বিনিময়ে সভাপতি টেকো এবং সম্পাদক ফিরোজের ঘোষিত কমিটিগুলো বিলুপ্ত করার দাবি মানা না হলে আগামী ৪৮ ঘন্টা পর তাঁদের বিরুদ্ধে আরো কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলে হুশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন জেলা-উপজেলা-পৌর ও কলেজ ছাত্রলীগের নেতারা।

রোববার দুপুরে খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলন থেকে এই দাবি জানানো হয়।

খাগড়াছড়ি জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি আলোক প্রদীপ ত্রিপুরার সভাপতিত্বে এতে বক্তব্য রাখেন জেলা ছাত্রলীগের উবিক মোহন ত্রিপুরা, বাপ্পী চৌধুরী, জেলা ছাত্রলীগের শিক্ষা ও পাঠচক্র বিশয়ক সম্পাদ মো: রোকন মিয়া, পানছড়ি উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শ্রীকান্ত দেব মানিক, মহালছড়ি উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জিয়াউর রহমান, মাটিরাঙ্গা উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক মোঃ সালাহউদ্দিন, দীঘিনালা উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক বাবলু কুমার দে, পানছড়ি উপজেলা ছাত্রলীগের সা: সম্পাদক জহিরুল ইসলাম, মহালছড়ি উপজেলা ছাত্রলীগের সা: সম্পাদক রনজিত দাশ, গুইমারা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আনন্দ সোম এবং মহালছড়ি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মা: হামিদুল ইসলাম প্রমুখ।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা বলেন, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি টিকো চাকমা ও সাধারণ সম্পাদক জহির উদ্দিন ফিরোজ স্বেচ্ছাচারিতা অনিয়ম-দুর্নীতি ও বিএনপি জামায়াতের সাথে সক্রিয়দের দলে পুনর্বাসন করে আওয়ামী রাজনীতি হুমকির মুখে ঠেলে দিচ্ছে। কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পরও দীর্ঘ বছর পরও সম্মেলন না দিয়ে ক্ষমতা কুক্ষিগত করে রাখার অপচেষ্টা চলাচ্ছে।

বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, গেল পৌরসভা নির্বাচনে নৌকা বিরোধী প্রার্থীর পক্ষে অবস্থান নিয়ে দলে বিরোধ সৃষ্টি করে। আবার আগামী পৌর নির্বাচনকে সামনে রেখে নৌকা বিরোধীদের নীল নকশা বাস্তবায়ণ করছে। তারই অংশ হিসেবে কারো সাথে আলাপ আলোচনা না করে অর্থের বিনিময়ে মাদক, চোরাকারবারি, বিএনপি-জামাত কর্মীদের পদে বসিয়ে কমিটি ঘোষনা করছে।

গত ১৪ নভেম্বর সভাপতি-সম্পাদক স্বাক্ষরিত ফেসবুকে প্রচারিত এক বিজ্ঞপ্তি রামগড়, মাটিরাঙ্গা, দীঘিনালা উপজেলা ও দীঘিনালা কলেজ কমিটি ঘোষণা করে। এই নিয়ে ক্ষুদ্ধ হয়ে ওঠে বদবঞ্চিতরা। সকালে দীঘিনালায় সড়ক অবরোধ করে তারা। এসময় ছাত্রলীগ বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাংচুর করে বলে অভিযোগ ওঠে। তওব কমিটি ঘোষণার একদিন পর ফের বিবৃতি দিয়ে ঘোষিত কমিটিগুলো বিলুপ্ত করা হয়।

এদিকে বিভিন্ন উপজেলা ও কলেজ কমিটি ঘোষনা নিয়ে উদ্ভুত পরিস্থিতির বিষয়ে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি টেকো চাকমা এবং সা: সম্পাদক জহির উদ্দিন ফিরোজ আনুষ্ঠানিক কোন বক্তব্য না দিলেও বিচ্ছিন্নভাবে সাংবাদিকদের জানান, সাংগঠনিক নিয়মেই তাঁরা দায়িত্ব পালন করছেন। কমিটির মেয়াদ শেষ হলেও কেন্দ্র থেকে কোন নির্দেশনা না আসায় তাঁরা গঠনতান্ত্রিক নিয়মে সংশ্লিষ্ট শাখার বেশিরভাগ নেতৃবৃন্দের মতামতের ভিত্তিতে অর্ন্তবর্তীকালীন কমিটি ঘোষণা করেছেন।

তারা দুইজনই তাঁদের বিরুদ্ধে তুলে ধরা অভিযোগ ভিত্তিহীন এবং উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলেও দাবি করেন। এর আগে রোববার দিনের প্রথমভাগে দীঘিনালা উপজেলা শাখা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণাকে কেন্দ্র করে আহুত সড়ক অবরোধের সময় বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাংচুর করেন পদবঞ্চিত ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

২৪ ঘণ্টা/রিহাম/প্রদীপ চৌধুরী