চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশেনের প্রশাসক আলহাজ্ব মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজন বলেছেন, তৈরী পোশাক রফতানী খাত বৈদেশিক আয়ের বড় উৎস। তাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনাকালে এই খাতে বড় ধরণের আর্থিক প্রণোদনা যুগিয়েছেন। ফলে বৈশ্বিক আর্থিক ধ্বসের মধ্যেও তৈরী পোশাক রফতানী শিল্প খাত ঘুরে দাঁড়িয়েছে এবং সামগ্রিক উন্নয়ন ও অথনৈতিক সক্ষমতার চাকা সচল রয়েছে। তিনি আজ বিকেলে খুলশীতে আঞ্চলিক কার্যালয়ে বিজেএমই’র পক্ষ থেকে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্ন বিভাগের ৪ হাজার কর্মীদের শীতবস্ত্র প্রদানকালে একথা বলেন।

বিজ্ঞাপন

তিনি আরো বলেন, তৈরী পোশাক রফতানী শিল্প কারখানাগুলো করোনাকালের প্রাথমিক দুর্গতি কাটিয়ে উঠে উৎপাদনে ভাল ভাবে ফিরে আসাটাই একটি ইতিবাচক বার্তা। এই বার্তাটির অর্থ হলো শূন্য থেকে শুরু করে পূর্নতা অর্জন করা। বাংলাদেশ তা বার বার প্রমাণ করেছে।

তিনি করোনাকালে বিজিএমইএ’র সেবামূলক কার্যক্রমের প্রশংসা করে বলেন, এতে মানবতা জয়ী হয়েছে এবং মানুষ বেঁচে থাকার ভরসা পেয়েছে।

তিনি বলেন, সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের মাঝে শীত বস্ত্র উপহার বিজিএমইএ’র একটি মহৎ উদ্যোগ, যা প্রশংসনীয়। তিনি বিজিএমইএ’র প্রস্তাবিত সৌন্দর্য্যবর্ধন কর্মসূচীর বিষয়ে সম্মতি জ্ঞাপন করেন। চট্টগ্রাম শহরকে অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও পরিচ্ছন্ন নগর হিসেবে গড়ে ব্যবসা বিনিয়োগ বান্ধব নগরীতে পরিণত করার লক্ষ্যে বিজিএমইএ সহ ব্যবসায়ী সমাজের সহযোগিতা কামনা করেন ।

এ সময় বিজিএমইএ’র প্রথম সহ-সভাপতি মোহাম্মদ আবদুস সালাম, সহ-সভাপতি এ. এম. চৌধুরী সেলিম, পরিচালকবৃন্দের মধ্যে অঞ্জন শেখর দাশ, মোহাম্মদ মুসা, মোহাম্মদ আতিক, খন্দকার বেলায়েত হোসেন ও এনামুল আজিজ চৌধুরী, প্রাক্তন প্রথম সহ-সভাপতি নাছির উদ্দিন চৌধুরী, প্রাক্তন সহ-সভাপতি মোহাম্মদ ফেরদৌস, প্রাক্তন পরিচালক সাইফ উল্লাহ মনসুর সহ গার্মেন্টস্্ শিল্পের মালিকগণ ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন এর প্রশাসকের একান্ত সচিব মোঃ আবুল হাশেমসহ উদ্ধর্তন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বিজিএমইএ’র প্রথম সহ-সভাপতি মোহাম্মদ আবদুস সালাম বাংলাদেশের ব্যবসা-বাণিজ্যে গুরুত্বপূর্ণ অঞ্চল হিসেবে চট্টগ্রামকে প্রতিষ্ঠিত করার লক্ষ্যে চট্টগ্রাম শহরের অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম জোরদার করায় তিনি চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন এর প্রশাসককে ধন্যবাদ জানান।

তিনি বলেন, বিজিএমইএ’র সামাজিক দায়বদ্ধতা কর্মসূচীর অংশ হিসেবে সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্নতা কর্মীদেরকে আসন্ন শীতে নির্বিঘেœ কার্যক্রম পরিচালনার লক্ষ্যে বিজিএমইএ’র পক্ষ থেকে শীত বস্ত্র উপহার হিসেবে প্রদান করতে পারায় বিজিএমইএ গর্বিত।

তিনি চট্টগ্রামে বিদেশী বিনিয়োগ বৃদ্ধি ও ব্যবসা-বাণিজ্যে সহায়ক পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে অবকাঠামোগত উন্নয়ন সহ বিভিন্ন কার্যক্রমে বিজিএমইএ সহ ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে মর্মে আশ্বস্থ করেন।

অনুষ্ঠান শেষে বিজিএমইএ’র প্রথম সহ-সভাপতি মোহাম্মদ আবদুস সালাম চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজন এর কাছে পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের (সেবক) জন্য চার হাজারের অধিক পিস শীত বস্ত্র হস্তান্তর করেন।

প্রশাসক খুলশীস্থ বিজিএমইএ ভবনের প্রবেশ পথে রাস্তার উভয় পার্শ্বে বিজিএমইএ’র প্রস্তাবিত সৌন্দর্য্যবর্ধনের স্থান পরিদর্শন করেন।