নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে দুই দিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে অবশেষে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে সাংবাদিক বোরহান উদ্দিন মুজাক্কির।

বিজ্ঞাপন

শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) রাত ১০টা ৪৫ মিনিটে তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন তার বড় ভাই ফখরুদ্দিন। নিহত মুজাক্কির উপজেলার চরফকিরা ইউনিয়নের নোয়াব আলী মাস্টারের ছেলে। তিনি নোয়াখালী সরকারি কলেজ থেকে সম্প্রতি রাষ্ট্রবিজ্ঞানে মাস্টার্স শেষ করেন। মুজক্কির অনলাইন নিউজ পোর্টাল বার্তা বাজারের নোয়াখালী জেলা প্রতিনিধি ছিলেন।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) বিকালে চাপরাশিরহাট পূর্ব বাজারে মেয়র আবদুল কাদের মির্জা ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদলের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের সময় ভিডিও সংগ্রহ করছিলেন সাংবাদিক মুজাক্কির। এসময় সংঘর্ষকারীদের ছোঁড়া গুলি তার গলা, মাথাসহ শরীরের বিভিন্নস্থানে বিদ্ধ হয়। পরে তাকে গুরুতর অবস্থায় প্রথমে ২৫০ শয্যা নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ও পরে রাতেই তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

শনিবার সকাল থেকে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। এদিন দুপুরে হাসপাতালের নিবিড় তত্ত্বাবধানে (আইসিইউ) রাত ১০টা ৪৫ মিনিটে তিনি মারা যান।

জেলা পুলিশ সুপার মো. আলমগীর হোসেন জানান, বুরহান উদ্দিন মুজাক্কিরের মৃত্যুর বিষয়টি তিনি শুনেছেন। নিহতের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করছেন বলেও জানান তিনি।
সাংবাদিক মুজাক্কিরের মৃত্যুতে ওবায়দুল কাদেরের শোক
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচারের কোম্পানীগঞ্জ প্রতিনিধি এবং কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা প্রেস ক্লাবের সদস্য সাংবাদিক বোরহান উদ্দিন মুজাক্কির এর মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) রাতে পাঠানো এক শোকবার্তায় মন্ত্রী মরহুমের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান এবং তার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন।