রাজীব গান্ধী হত্যায় দণ্ডিত আসামি ৩১ বছর পর মুক্ত

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক |  বুধবার, মে ১৮, ২০২২ |  ২:১১ অপরাহ্ণ
24ghonta-google-news

পাম তেল রফতানি বন্ধের সরকারি সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেছেন ইন্দোনেশিয়ার কৃষকরা। মঙ্গলবার দেশটির রাজধানী জাকার্তায় শত শত কৃষক এ বিক্ষোভে অংশ নেন।

ইন্দোনেশিয়া বিশ্বের শীর্ষ পাম তেল রফতানিকারক দেশ। গত ২৮ এপ্রিল অপরিশোধিত পাম তেল রফতানি বন্ধের ঘোষণা দেয় দেশটির সরকার। সরকারি সিদ্ধান্তের কারণে কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন বলে দাবি বিক্ষোভকারীদের। তেল রফতানি বন্ধ করায় আয় কমে গেছে কৃষকদের। এ কারণে পাম তেল রফতানি বন্ধের সিদ্ধান্ত বাতিলে সরকারের প্রতি দাবি জানিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা। অভ্যন্তরীণ রান্নার তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় এমন সিদ্ধান্ত নেয় দেশটির সরকার।

ইন্দোনেশিয়া সরকারের এমন সিদ্ধান্তে সয়াবিন, সূর্যমুখী, রেপসিডসহ অন্যান্য ভোজ্যতেলের দামও বেড়ে যায়। আকস্মিক এ ঘোষণায় বিপাকে পড়ে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তানসহ এশিয়ার দেশগুলো। যদিও পরবর্তী সময়ে জানিয়ে দেওয়া হয়, রফতানি নিষেধাজ্ঞা শুধু পাম তেলের পরিশোধিত রূপ ‘পাম ওলিন’ রফতানিতেই দেওয়া হয়েছে, যা ভোজ্যতেল হিসেবে ব্যবহার হয়।

ইন্দোনেশিয়ার কর্মকর্তারা স্পষ্ট করেন, শুধু পরিশোধিত, হালকা ও গন্ধযুক্ত (আরবিডি) পাম ওলিনের রফতানি বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। অপরিশোধিত তেল ও পাম তেলজাত অন্যান্য পণ্য রফতানি অব্যাহত থাকবে। বিশ্লেষকরা মনে করছেন, পাম তেল রফতানির নিষেধাজ্ঞাও খুব তাড়াতাড়ি তুলে নেওয়া হবে।

তবে এরই মধ্যে ক্রেতা দেশগুলো, বিশেষ করে ভারত ও পাকিস্তানে অসন্তোষ দানা বাঁধছে। আল-জাজিরার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইন্দোনেশিয়ার পাম তেল নিষেধাজ্ঞার ব্যাপারে এসব দেশ সরকারিভাবে প্রতিবাদ জানালেও অসন্তোষ প্রকট হয়ে উঠছে। বিশ্লেষকরা বলছেন, এসব দেশের সরকারগুলো বিষয়টি নিয়ে কথা বলার জন্য জাকার্তায় প্রতিনিধি পাঠানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে।

বিশ্লেষকদের হিসাবে ইন্দোনেশিয়ার পাম তেল পণ্য রফতানির প্রায় ৪০ শতাংশই আরবিডি ওলিন। ফলে রফতানি নিষেধাজ্ঞায় দেশটির পাম তেল উৎপাদক ও প্রক্রিয়াজাতকারীরা উদ্বেগে পড়েছেন। কারণ, দেশটিতে যে পরিমাণ পাম তেল প্রয়োজন হয় তার দ্বিগুণের বেশি রফতানি হয়।

এন-কে

24ghonta-google-news
24ghonta-google-news