টইটং ইউপি চেয়ারম্যান ও এমইউপি’র যৌথ উদ্যোগে রাস্তার উভয়পাশে দু’হাজারের অধিক চারা রোপণ করা হয়েছে

 আবদুল মামুন ফারুকী চকরিয়া প্রতিনিধি |  মঙ্গলবার, আগস্ট ৯, ২০২২ |  ২:২৫ অপরাহ্ণ
24ghonta-google-news

বলা হয় গাছ মানুষের পরম বন্ধু। বিপুল মানুষের পদভারে কম্পিত আমাদের সুজলা-সুফলা দেশটি প্রতিদিন বৃক্ষশূন্য হচ্ছে। বনকেঁখোদের রোষানলে পড়ে বৃক্ষশূন্য হচ্ছে সোনার বাংলাদেশটি। অবাধ ও নির্বিচারে চলছে বৃক্ষ নিধনকর্মকাণ্ড। যার ফলে দেশের জলবায়ু পরিবর্তনে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। আমাদের জীবনের জন্যে, জীবিকার জন্যে বৃক্ষের প্রয়োজনীয়তা অপরিহার্য। বৃক্ষ শুধুমাত্র পরিবেশ, আবহাওয়া ও জলবায়ুর ভারসাম্য বজায় রাখে তা নয়, বৃক্ষমালা নিয়মিত বৃষ্টিপাতেও সাহায্য করে, নদীর ভাঙন থেকে ভূভাগকে রক্ষা করে। মোটকথা, পৃথিবীকে মনুষ্যবাসের উপযোগী করতে বনাঞ্চল সৃষ্টি ও বৃক্ষরোপণের প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। মূলত এই গুরুত্ব উপলব্ধি করতে পেরে কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলাধীন টইটং ইউনিয়নস্থ ফরেস্ট অফিস-বনকানন সংযোগ সড়কের দু’পাশে প্রায় দুইহাজারেরও বেশি বৃক্ষের চারা রোপণ করা হয়েছে।

টইটং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম চৌধুরী ও চার নং ওয়ার্ড এমইউপি মৌ.আব্দুল হকের যৌথ উদ্যোগে নতুন করে সংস্কারকৃত ওই রাস্তার দু’পাশে বৃক্ষের চারা রোপণ করা হয়। গত ৩১জুলাই থেকে ৬ আগস্টে রোপণকৃত এই চারাগাছ সংরক্ষণের জন্য দেওয়া হয়েছে বাঁশ ও কাটের ঘেরাও। যা ইতিমধ্যে স্থানীয় জনসাধারণের দৃষ্টি কেড়েছে। ফুটে উঠেছে রাস্তার অপার সৌন্দর্য। এবিষয়ে জানতে চাইলে টইটং ইউপি চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম চৌধুরী বলেন; পরিবেশ রক্ষা, সংস্কারকৃত রাস্তার সৌন্দর্যবর্ধন ও রাস্তা টেকসই করণের জন্য আমরা এই বৃক্ষচারা রোপণের উদ্যোগ গ্রহণ করেছি।

এ ব্যাপারে টইটং চার নং ওয়ার্ড এমইউপি মৌ.আব্দুল হক বলেন; এই গাছ শুধু রাস্তার দু’পাশে সবুজ বেষ্টনী গড়ে তোলার ক্ষেত্রে সহায়ক না, নব নির্মিত রাস্তার সৌন্দর্যবর্ধন ও পরিবেশের ভারসাম্যরক্ষায়ও সহায়ক হবে। তাই এই গাছগুলো যথাসময়ে বেড়ে উঠতে ও যেকোনো অনিষ্ঠ থেকে রক্ষা পেতে স্থানীয় জনগণের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করছি।

24ghonta-google-news
24ghonta-google-news